ধুনটের পেঁচিবাড়ি-চাঁনদিয়া সড়ক ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ

ধুনট (বগুড়া) প্রতিনিধি:

বগুড়ার ধুনট উপজেলার পেঁচিবাড়ি-চাঁনদিয়াড় সড়ক ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। ফলে দুর্ভোগে পড়েছেন ঐ এলাকার অর্ধশত গ্রামের মানুষ। বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) প্রবল বর্ষণের ফলে ওই সড়কের প্রায় ৫ মিটার অংশ ভেঙে পাশের খালে পড়ে।

জানা গেছে, উপজেলার পেঁচিবাড়ি বাজার থেকে চাঁনদিয়াড় সেতু পর্যন্ত প্রায় চার কিলোমিটার সড়ক স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) তত্বাবধায়নে ২০১১ সালে সড়কটি পাকাকরণ করা হয়। পরবর্তীতে একবার সংস্কার করা হয়েছে এই সড়কটি। সব মিলে ব্যয় হয়েছে কমপক্ষে দুই কোটি টাকা। সড়কটি নির্মাণের ফলে গ্রামীণ অর্থনীতি চাঙ্গা হয়ে উঠে।

এদিকে পেঁচিবাড়ি বাজার থেকে চাঁনদিয়াড় সেতু পর্যন্ত পাকা সড়কের গা ঘেষে বয়ে গেছে একটি সরকারি খাল। পানি উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধায়নে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে খালটির পুনঃখননের কাজ শেষ করা হয়েছে। এতে ব্যয় হয়েছে ২ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। বাঙ্গালী নদী থেকে এই খাল দিয়ে এক সময় পানি প্রবাহিত হতো। কিন্ত আশির দশকে খালের উৎস মুখের পেঁচিবাড়ি নামক স্থানে বাঁধ নির্মাণ করা হয়। সেটি বর্তমানে পাকা সড়কে পরিণত হয়েছে। ওই সড়ক দিয়ে সব ধরণের যানবহন চলাচল করে।

খালের উৎস মুখ বন্ধ করায় দীর্ঘদিন ধরে বাঙালী নদী থেকে খালের ভেতরে পানি প্রবেশ করতে পারছে না। এছাড়া খালের পানিতে নেই কোন স্রোত। তারপরও সাড়ে চার কিলোমিটার পাকা সড়কের শতাধিক স্থানে ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। এরমধ্যে পেঁচিবাড়ি গ্রামের ভেতর সড়কের ৫মিটার অংশ ভেঙে খালে বিলীন হওয়ায় ওই সড়ক দিয়ে সকল প্রকার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

এলাকাবাসী জানান, পানি প্রবাহ বন্ধ হওয়ায় খালটি এখন মরা খালে পরিণত হয়েছে। এই খাল মানুষের কোন কাজে আসেনি। এই খালটি অপরিকল্পিতভাবে পুনঃখনন করা হয়। অনেক জায়গায় খাড়াভাবে খাল খনন করায় ধসে পড়ছে পাড়ের মাটি। ভাঙনের মুখে পড়েছে খালপাড়ের বসতি। এক পর্যায়ে কয়েক দিনের ভারি বৃষ্টিতে সড়ক ভেঙে দ্বিখন্ডিত হয়েছে। সেখানে প্রায় ৫ মিটার অংশ ফাঁকা হয়ে গেছে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) ধুনট উপজেলা প্রকৌশলী জহুরুল ইসলাম বলেন, এই খালটি পুনঃখননের আগে পাকা সড়কটি টিকে ছিল। কিন্ত অপরিকল্পিত ভাবে খননের পর পাকা সড়ক ধসে খালে পড়েছে। খাল খনন করতে গিয়ে পাকা সড়কের পাশে জায়গা রাখা হয়নি। এ কারণে পাকা সড়কটি রক্ষা করা যাচ্ছে না। প্রবল বর্ষণে সড়ক ভেঙে দ্বিখন্ডিত হওয়া স্থানে জরুরিভাবে মেরামত করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *