বগুড়ার শেরপুরে বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ

এস,আই শাওন:

সবাইকে নিয়ে একসাথে বিকশিত হোন, শরীরের যত্ন নিন, সুস্থ্য থাকুন, আমাদের কর্ম আমাদের ভবিষ্যৎ এ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে বগুড়ার শেরপুর উপজেলা প্রশাসন, কৃষি সম্প্রসারণ ও খাদ্য অধিদপ্তরের আয়োজনে বিশ্ব খাদ্য দিবস দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

(১৬অক্টোবর) শুক্রবার সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলী সেখের সভাপতিত্বে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা খাদ্যনিয়ন্ত্রক সেকেন্দার রবিউল ইসলাম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শারমিন আক্তার, উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা রুবেল আমিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি আলহাজ¦ মুন্সী সাইফুল বারী ডাবলু, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ শাহজামাল সিরাজী, শেরপুর উপজেলা কৃষকলীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ডিলার গোলাম মোস্তফা লিটন, কৃষি কর্মকর্তা সামিদুল ইসলাম, মাসুদ রানা, খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ডিলার আব্দুর রশিদ প্রমূখ।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত আলী সেখ বলেন, করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল রাখতে খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি করতে জোর তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর অংশ হিসেবে কৃষি সহায়তা হিসেবে কৃষকদের মাঝে বিতরণের জন্য সরকার ৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকা বিশেষ বরাদ্দ দিয়েছে, যাতে কৃষক তাদের উৎপাদনে উৎসাহ না হারায়, তারা যেন উৎপাদন করতে পারে।

করোনাভাইরাসের কারণে যখন সারাবিশ্ব স্থবির তখন একটা দুর্ভিক্ষ দেখা দিতে পারে। বাংলাদেশে যেন তার প্রভাব না পড়ে, বাংলাদেশের মানুষ যেন এ ব্যাপারে কোনো কষ্টভোগ না করে সেদিকে লক্ষ্য রেখেই সরকার বিভিন্ন প্রণোদনা দিয়ে যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ১৯৪৫ সনের ১৬ অক্টোবর জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা FAO (Food and Agricultural Organisation) প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৭৯ সালে বিশ্ব খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার অর্গানাইজেশন) ২০তম সাধারণ সভায় হাঙ্গেরির তৎকালীন খাদ্য ও কৃষিমন্ত্রী ড. প্যাল রোমানি বিশ্বব্যাপী এই দিনটি উদযাপনের প্রস্তাব উত্থাপন করেন। ১৯৮১ সাল থেকে বিশ্ব খাদ্য ও কৃষি সংস্থার প্রতিষ্ঠার দিনটিতে (১৬ অক্টোবর, ১৯৪৫) দারিদ্র ও ক্ষুধা নিবৃত্তির লক্ষ্যে বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বিশ্বের ১৫০টিরও বেশি দেশে এই দিনটি গুরুত্বের সঙ্গে পালিত হয়ে আসছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *