ধুনটে নবান্নের আমেজে আমন ধান কাটার ধুম

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ

তারিকুল ইসলাম. ধুনট (বগুড়া)

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় নবান্নের আমেজে ধান কাটার ধুম লেগেছে। রোপা আমন ধান কাটা আর মাড়াই-ঝাড়াই পুরোদমে শুরু হয়েছে। মাঠে ফলানো সোনালী আমন ধান তোলতে ক’দিন ধরে ব্যস্ত সময় পার করছে এ উপজেলার কৃষকরা। আমন চাষে প্রতিকুল আবহাওয়া ছিল, কিন্ত বর্তমানে আবহাওয়া অনুকূল থাকায় নির্বিঘ্নে ধান কাটা, মাড়াই-ঝাড়াই আর ধান শুকানোর কাজে কৃষক-কৃষাণিরা নেমেছেন মাঠে।

ধুনট উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে কৃষান-কৃষানীদের আমন ধানের কাটা মাড়াই নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা গেছে। কৃষক ধান কেটে আঁটি বেঁধে ভারে করে অথবা ভ্যানের মাধ্যমে বাড়িতে নিয়ে যাচ্ছেন। বাড়ির আঙ্গিনায় চলছে আমন ধান মাড়াইয়ের কাজ। নতুন ধান নিয়ে কৃষকের যেমন ব্যস্ততা রয়েছে, তেমনি আনন্দে রয়েছে কৃষক পরিবার।

ধুনট উপজেলা কৃষি বিভাগের তথ্যমতে চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় প্রায় ৪৫হাজার কৃষক ১৫ হাজার ৭৯০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের চাষ করেছেন কৃষক। এরমধ্যে কয়েক দফা বন্যায় ও অতিবৃষ্টিতে নিম্নাঞ্চলের ধান ক্ষেত পানিতে নিমজ্জিত হয়। যার ফলে ৯০ হেক্টর জমির আমন ধান নষ্ট হয়ে যায়। এরপরও কৃষক অতিবৃষ্টি এবং অতিগরমে প্রতিকুল পরিস্থিতির মধ্যদিয়ে আমান ধান চাষ করেছেন। তবে এ বছর ধানের ভালো ফলন হয়েছে। অগ্রহায়ণ মাসে পুরোদমে আমন ধান কাটা মাড়াই শুরু হয়। তবে এ উপজেলায় কৃষক কার্তিক মাসের মাঝামাঝি থেকে আমন ধান কাটা শুরু করেছেন।

মাঠপাড়া গ্রামের কৃষক রুবেল শেখ বলেন, এ বছর অবহাওয়া খুব ঝামেলা করেছে। তারপরও ফলন ভালো হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে স্বপন মিয়া জানান, ধান কাটার পর ওই জমিতে তিনি সবজি চাষ শুরু করবেন।

ধুনট উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মশিদুল হক বলেন চলতি মৌসুমে ধুনট উপজেলায় প্রায় ৫২ হাজার মেট্রিক টন আমন ধান উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। ইতিমেধ্য কৃষক ধান কাটতে শুরু করেছেন। নানা প্রতিকুলতার মধ্যে কৃষক আমন ধান চাষ করেছেন। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা কৃষকদের বিভিন্ন পরামর্শ ও প্রযুক্তিগত সহায়তা দিয়েছেন। কৃষক ভাল ফলন পেয়ে খুশি হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *