ধুনটে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী স্থায়ী বহিস্কার

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ রাজনীতি সংবাদ

তারিকুল ইসলাম. ধুনট (বগুড়া)

বগুড়ার ধুনট পৌরসভা নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় এজিএম বাদশাহ্ কে স্থায়ী বহিস্কার করেছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। বুধবার (১৩ জানুয়রি) দুপুওে সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক আফসার আলী এ তথ্য জানান।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে আফসার আলী বলেন, চলমান ধুনট পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনিত প্রার্থী অধ্যাপক টিআইএম নূরুন্নবী তারিক নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এই নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এজিএম বাদশাহ্। এবারের নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ার মধ্যদিয়ে তিনি দু’দফা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নিকট করা শপথ ভঙ্গ করলেন। এছাড়াও তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ হয়েছে। এরআগে ২০১৫ সালেও তিনি দলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়েছেন। একারনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ধুনট উপজেলা শাখার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এজিএম বাদশাহ্ কে দল থেকে স্থায়ী বহিস্কার করা হলো।

স্থায়ী বহিস্কারাদেশে স্বাক্ষর করেছেন ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক টিআইএম নূরুন্নবী তারিক ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন। এছাড়াও তাঁরা স্থায়ী বহিস্কারাদেশের সুপারিশপত্র কেন্দ্রে পাঠিয়েছেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন বলেন, স্থায়ী বহিস্কার করার পর এজিএম বাদশাহ্’র সঙ্গে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আর কোন সম্পর্ক থাকলো না। এছাড়া আগামীতে তার আওয়ামী লীগের রাজনীতি করার কোন সুযোগ নেই।

আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক টিআইএম নূরুন্নবী তারিক সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড পৌর এলাকায় নিশ্চিত করার লক্ষ্যে নৌকা প্রতীকে পৌরবাসীর ভোট প্রার্থনা করেন।

এজিএম বাদশাহ্ ১৯৭৮ সালে ধুনট থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ার মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক দায়িত্বশীল হিসেবে কাজ করে আসছেন। সর্বশেষ তিনি ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১১ সালে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী হিসেবে ধুনট পৌরসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে তিনি মেয়র পদে জয় লাভ করেন। ২০১৫ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেও তিনি মেয়র পদে বিজয়ী হয়েছেন। আগামী ৩০ জানুয়ারির নির্বাচনেও তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জগ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

আওয়ামী লীগের স্থায়ী বহিস্কারের সিদ্ধান্ত বিষয়ে এজিএম বাদশাহ্ বলেন, এধরনের কোন চিঠি বা নোটীশ আমি পাইনি এবং এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়নি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দীর্ঘদিন পৌরবাসীর সেবায় নিয়োজিত রয়েছি। পৌরবাসীর ভালোবাসার প্রতি সম্মান জানিয়ে এবারও নির্বাচনে অংশ নিয়েছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *