স্বপ্নের শহর গড়ার প্রতিশ্রুতিতে ভোট প্রার্থনা মেয়র প্রার্থীদের

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ রাজনীতি সংবাদ

শাওন, শেরপুর (বগুড়া):

আসছে ১৬ জানুয়ারী বগুড়া জেলার শেরপুর পৌরসভা নির্বাচন। সেই হিসেবে নির্বানের বাঁকী আছে আর মাত্র ৩দিন। শহরজুড়ে চলছে প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা। দীর্ঘ ৫ বছর পর পছন্দের প্রার্তীকে ব্যালটের মাধ্যমে নির্বাচিত করার আনন্দে উৎফুল্ল ও উজ্জীবিত রয়েছে ভোটাররা। পৌর শহরের চায়ের দোকান থেকে শুরু করে হোটেল রেস্তোরা, বিপনী বিতানগুলোতেও স্থান পাচ্ছে প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা।

এ নিবার্চনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার, বিএনপি’র ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী সাবেক মেয়র স্বাধীন কুমার কুন্ডু, স্বতন্ত্র প্রার্থী জগ প্রতীক নিয়ে উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহবায়ক ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব জানে আলম খোকা ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ শেরপুর উপজেলা শাখার সভাপতি আলহাজ¦ এমরান কামাল ইমরান হাত পাখা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছেন। এ ছাড়াও শেরপুর পৌরসভায় সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১০ জন এবং ৯টি ওয়ার্ডে ৩৬জন প্রার্থী কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
এদিকে ত্রিমূখী লড়াইয়ের সম্ভাবনাময় নির্বাচন নিয়ে ভোটাররাও চুল-চেড়া বিশ্লেষন করে হিসেব নিকেষ কষছেন।

দেখা গেছে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক এমনকি প্রতিটি ওয়ার্ডের পাড়া মহল্লায় মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের পোস্টারে ভরে গেছে। প্রার্থীদের প্রচার প্রচারণায় উৎসব মুখর পরিবেশে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। স্বপ্নের শহর গড়াসহ উন্নয়ণের নানা ফিরিস্তি দিচ্ছেন তারা। মেয়র পদ প্রার্থীদের সাথে কথা বললে তারা পৌরসভার সেবা গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধী, শিক্ষার্থী, মুক্তিযোদ্ধা ও বয়স্ক নাগরিকদের জন্য প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত, ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি ও বিনোদন চর্চায় ব্যবস্থা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, উপাসনালয়, এতিমখানার উন্নয়ন, মেধাবী ছাত্রছাত্রী, গুণীজনদের সম্মাননা প্রদান, বর্ষা মৌসুমে এলাকাভিত্তিক জলাবদ্ধতা দূরীকরণে স্থানীয় এবং বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নেয়া, পাশাপাশি জলাবদ্ধতা নিরসনে নিয়মিত ও বিশেষভাবে বর্ষা মৌসুমের (ফেব্রুয়ারি-মার্চ) পূর্বেই ড্রেনগুলো পরিস্কার করা, উন্নত ও সুন্দর জীবনের জন্য নিরাপদ স্বাস্থ্যসম্মত পৌরসভা গড়তে মশার উৎপাত রোধে মশক নিধন কর্মসূচি গ্রহণ, ফরমালিন মুক্ত ও নিরাপদ বাজার ব্যবস্থা নিশ্চিত, শহরের রাস্তাঘাট নির্মাণ, রাতের শহরকে আলোকিত করতে ল্যাম্পপোস্টের নিশ্চিত ও তদারকির ব্যবস্থা গ্রহণ, রিক্সার জটলামুক্ত শহর, শুকরমুক্ত রাস্তা ঘাট, রাস্তার পাশে যেখানে সেখানে বর্জ্য না ফেলে সঠিক বর্জ্যব্যবস্থাপনায় বিশেষ পরিকল্পনা নেওয়াসহ স্বপ্নের শহর গড়ার প্রতিশ্রতি দিলেন মেয়র প্রার্থীরা।
বিজয়ী হলে সবার আগে কোনদিকে নজর দিবেন জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বর্তমান মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার বলেন, বিগত দিনে হাতে নেয়া কাজগুলো আগে সম্পন্ন করতে চাই।

বিজয়ী হলে পরিকল্পনা কী? এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপি’র ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী সাবেক মেয়র স্বাধীন কুমার কুন্ডু বলেন, পৌর পিতা না হয়ে নাগরিকদের বন্ধু হতে চাই। পৌরপিতা শব্দটির মধ্যেই এক ধরনের নিঃসঙ্গ, কর্তৃত্ববাদী শাসকের ইমেজ ফুটে ওঠে। আধুনিক পৌরসভা বিনির্মাণে আমি নাগরিকদের কাছ থেকে জানতে চাই, শুনতে চাই এবং শিখতে চাই। আমাদের সেতু হবে আন্তরিকতার বন্ধনে। স্বতন্ত্র প্রার্থী জগ প্রতীকের প্রার্থী উপজেলা বিএনপি’র সাবেক আহবায়ক ও সাবেক পৌর মেয়র আলহাজ্ব জানে আলম খোকা বলেন, বিজয়ী হলে আগে নাগরিকের অধিকার নিশ্চিত করবো। পৌর শহরে বসবাসরত একজন নাগরিকের কী কী সুযোগ সুবিধা প্রয়োজন তা মেটানোই হবে আমার একমাত্র ব্রত। উল্লেখ্য, ১৮৭৬ সালের ১ এপ্রিলে ১০.৩৯৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে গঠিত হয়। লোকসংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। ৯ টি ওয়ার্ড ও ১৯ টি মহল্লায় ৪৯৪৬ খানার সংখ্যা নিয়ে গঠিত পৌর এলাকায় শিক্ষার হার প্রায় ৭০%। মোট ভোটার সংখ্যা ২৩ হাজার ৭৫৪ জন। তারমধ্যে পুরুষ ১১ হাজার ৪১৫, মহিলা ১২ হাজার ৩৩৯। ৯টি ওয়ার্ডে ১১টি ভোট কেন্দ্র রয়েছে। তার মধ্যে ঝুঁকিপূর্ন রয়েছে ৯টি কেন্দ্র।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *