ইউটিউব দেখে আপেল কুল চাষে দুপচাঁচিয়ার ফারুকের সাফল্য

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ

আলাল হোসাইন, দুপচাঁচিয়া( বগুড়া):

ইউটিউবে কৃষির সাফল্য দেখে সখের বসে বগুড়ার দুপচাঁচিয়া উপজেলার তালোড়া এলাকার মুদির দোকানী ফারুক হোসেন আপেল কুল চাষে প্রথম বর্ষে সাফল্য পান। মোদির দোকানী হলেও ছোট ভাইয়ের পরামর্শে সখের বসে নিজস্ব ২৯ শতাংশ জমিতে শুরু করে আপেল কুল চাষ। শুরুটা ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে নাটোর থেকে প্রতিটি চারা পরিবহন সহ ৮৫টাকা খরচ করে তালোড়া গ্রামে আপেল কুল চারা রোপন করে। রোপনের বছর না ঘুরতেই অনাকাঙ্খিত ফল পেতে বসেছে । এ যেন মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি। ভালো গাছ ও ফলনের আশায় শুরুটা ভয়ের মধ্যে হলেও জমি বা মাটি নির্বাচনে কোন ভেদাভেদ না থাকায় উপজেলা কৃষি অফিসের সার্বিক সহযোগিতায় ১২৫ চারাগাছ লাগিয়েছেন ।

জমি পরিচর্যা, চারা ক্রয়, আশেপাশে ঘেরা সহ এ পর্যন্ত তাঁর খরচ হয়েছে প্রায় পঞ্চাশ হাজার টাকা। প্রতিটি গাছে লাল সবুজ রঙে ছেয়ে গেছে আপেল কুল। গাছে গাছে যেন পাতার চেয়েও ফলই বেশি। তবে পাখি ও কাঠ বিড়ালের হাত থেকে ফল রক্ষা করতে কুল বাগান জুড়ে টানানো হয়েছে নেট জাল। এবারই প্রথম ফল পেলেও প্রতিটি কুল ১০০গ্রামের মতো ওজন হওয়ায় প্রত্যেক গাছে কমপক্ষে ২৫থেকে ৩০কেজি কুল পেয়েছেন । শুরুতেই ব্যাপক সাফল্য পাওয়ায় একই জমিতে কুল গাছের ফাঁকে ফাঁকে মাল্টা ও থাই পেয়ারাসহ অন্যান্য ফলজ বাগান করেছেন। ভালো ফলন ও চাষযোগ্য সহজ হওয়ায় আশেপাশের মানুষজন প্রতিনিয়ত তাদের বাগান পরিদর্শন ও তাঁর কাছে পরামর্শ চাচ্ছেন।

ব্লকে কৃষি অফিসের দায়িত্বে থাকা উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মামুন হোসাইন প্রাং বলেন, কোন উদ্যোক্তা নতুন কিছু করতে চাইলে আমরা জমি নিবার্চনসহ পরামর্শে দিয়ে থাকি।

উদ্যোক্তা ফারুক হোসেন বলেন, কৃষিতে বেকারদের চাকরি নয় ব্যবসা বা কৃষি হউক আয়ের অন্যতম মাধ্যম এবং ভাগ্য পরিবর্তনের কথা ভেবে কৃষি নির্ভর করতে ছোট ভাইয়ের আগ্রহে ভালো জাতের ফলজ অনুসন্ধানে জাত নির্বাচন করি। আপেল কুল খেতে সুস্বাদু হওয়ায় বাজারজুড়ে চাহিদা ব্যাপক থাকায় জমি থেকে পাইকারী প্রতি কেজি ৬০ টাকায় ধরে বিকি করছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সাজেদুল আলম বলেন, আপেল কুল চাষে মাটির ভেদাভেদ ও অতিরিক্ত খরচ না থাকায় এ কুল চাষ লাভজনক। এ অঞ্চলে আপেল কুল বিচ্ছিন্নভাবে চাষ হয়ে থাকে। তবে কৃষকদের নতুন জাতের জন্য উদ্বুদ্ধ করা সহ উপজেলা কৃষি অফিস পরামর্শের পাশাপাশি সব ধরনের সহযোগিতা করে থাকে। সূত্র: ডেল্টা টাইমস্

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *