ধুনটে আ.লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে পাল্টাপাল্টি মামলা: গ্রেপ্তার-২

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ রাজনীতি সংবাদ

তারিকুল ইসলাম. ধুনট (বগুড়া)

বগুড়ার ধুনট উপজেলার আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় পাল্টাপাল্টি মামলা দয়েছে। এক পক্ষের মামলায় পৌরসভার মেয়র এজিএম বাদশাহ্ সহ ১৫জন এবং অপর পক্ষের মামলায় উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম সহ ১৫জন নেতাকর্মীকে আসামী করা হয়েছে। পৃথক দু’টি মামলার এজাহাভুক্ত ২ আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো ধুনট উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি পশ্চিম ভরণশাহী গ্রামের ইকবাল হোসেন রিপন (৩০) ও অফিসারপাড়ার আওয়ামী লীগ নেতা শাহাদত হোসেন (৪৫)। রবিবার সকালের দিকে ধুনট থানা থেকে আদালতের মাধ্যমে তাদের বগুড়া জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে শনিবার রাতে বিশেষ অভিযান চালিয়ে নিজ নিজ বাড়ি থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, ধুনট পৌরসভা নির্বাচনের পরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দু’ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। শনিবার সকাল ১১টায় উপজেলা পরিষদ সড়কে ওই দু’পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইট পাটকেল নিক্ষেপ ও মারপিটের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৬ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় পুলিশ সহ উভয় পক্ষের অন্তত ২৫জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

এ ঘটনায় শনিবার রাতে একপক্ষে উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিক বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে। ওই মামলায় উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলামসহ ১৫ জনের নাম উল্লেখ্যসহ অজ্ঞাত আরো ৫০-৬০ জনকে আসামী করা হয়েছে। অপরপক্ষে উপজেলা বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ হারুন বাবু বাদি হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছে। ওই মামলা ধুনট পৌরসভার মেয়র এজিএম বাদশাহ্ সহ ১৫ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ৩০-৪০ জনকে আসামী করা হয়েছে।

ধুনট থানার অফিসার ইনাচর্জ (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা বলেন, পৃথক দু’টি মামলার আসামীদের গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান অব্যাহত রয়েছে। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরিবেশ শান্ত রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *