বগুড়ার শেরপুরে মারপিটের শিকার আহত গৃহকর্ত্রীর মৃত্যু; আটক-১

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ

শেরপুর(বগুড়া)প্রতিনিধি:

বগুড়ার শেরপুরের বিশালপুর ইউনিয়নের নাগরপাড়া গ্রামে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের মারধরে আহত গৃহকর্ত্রী তুলি রাণী( ৫৫) অবশেষে গতকাল বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) বিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বগুড়া শজিমেকে মারা গেছে বলে তার পারিবারিক সুত্রে জানা গেছে ।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষ শেরপুর থানায় পৃথক পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের করেছে।

জানা যায়, উপজেলার বিশালপুর ইউনিয়নের বিশালপুর নাগরপাড়া গ্রামের আনন্দ চন্দ্র সরকারের ছেলে চিত্তরঞ্জন গত মঙ্গলবার (২৪ ফেব্রুয়ারী) সকালে প্রতিপক্ষ মৃত অনাথ চন্দ্র সরকারের ছেলে শ্যামল চন্দ্র সরকারের জমির আইল দিয়ে হেটে যাচ্ছিল। পূর্ব বিরোধের জেরে শ্যামল চন্দ্র জমির আইল দিয়ে যাওয়ায় চিত্ত রঞ্জনকে অকথ‍্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে। গালিগালাজের শব্দ শুনে চিত্তরঞ্জনের স্ত্রী তুলি রাণী এগিয়ে গেলে প্রতিপক্ষ শ্যামল চন্দ্র সরকার তার উপরও চড়াও হয়। এক পর্যায়ে তাদেরকে দেশীয় অস্ত্র বাঁশের লাঠি দিয়ে বেধড়ক মারধর শুরু করে। খবর পেয়ে তুলির দুই ছেলে প্রভাত চন্দ্র সরকার ও সনাতন চন্দ্র সরকার এগিয়ে গেলে শ‍্যামল তাদেরকেও মারধর করে।

গুরুত্বর আহত অবস্থায় স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে শেরপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করে। অবস্থার অবনতি হলে তুলি রাণী ও তার ছেলেদেরকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে (শজিমেকে) স্থানান্তর করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) বিকাল সাড়ে ৩টায় তুলি রাণী মারা যান।

এ ব্যাপারে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, মারপিটের ঘটনায় উভয় পক্ষের অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে একপক্ষের একজন নারী চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হওয়ায় অভিযুক্ত শ্যামল নামের একজনকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *