সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে বগুড়ার শেরপুরে মানববন্ধন

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ

এস,আই শাওন:

সচিবালয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামকে নির্যাতন, হেনস্তা ও দীর্ঘ সময় আটকে রেখে সাজানো মামলায় জড়ানোর প্রতিবাদ জানিয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বগুড়ার শেরপুরের গণমাধ্যম কর্মীরা।

এ ঘটনায় সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নিঃশর্ত মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে ১৯ মে বুধবার বিকাল ৪টায় উপজেলার স্থানীয় বাসস্ট্যান্ডে বগুড়ার শেরপুর উপজেলা প্রেসক্লাবের আয়োজনে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবাদ সভায় উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি দীপক কুমার সরকারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, শেরপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ জানে আলম খোকা, সাপ্তাহিক তথ্যমাত্রা পত্রিকার সম্পাদক সুজিত বসাক, প্রথম আলোর শেরপুর প্রতিনিধি সবুজ চৌধুরী, যুগান্তর প্রতিনিধি জাহাঙ্গীর ইসলাম, আমাদের সময় প্রতিনিধি শফিকুল ইসলাম শরীফ, অনলাইন পত্রিকা বাংলার দর্পনের সম্পাদক রঞ্জন কুমার দে।

সাংবাদিক সৌরভ অধিকারী শুভ’র সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, শেরপুর অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি শহিদুল ইসলাম শাওন, সাংবাদিক আরিফুজ্জামান হীরা, সাখাওয়াত হোসেন জুম্মা, শফিকুল ইসলাম বাবলু, জিয়াউদ্দিন লিটন, নজরুল ইসলাম প্রমূখ। এসময় শেরপুর উপজেলা প্রেসক্লাব, শেরপুর প্রেসক্লাব, উত্তরবঙ্গ সাংবাদিক সংস্থা, শেরপুর অনলাইন প্রেসক্লাব, সহ স্থানীয় প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সমাবেশে বক্তারা অবিলম্বে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের নির্যাতনের ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে, তার নিঃশর্ত মুক্তি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের ঘৃণ্যতম নির্যাতন ও হেনস্তাকারী সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী করেন।

বক্তারা আরো বলেন, প্রশাসনযন্ত্রের সর্বোচ্চ স্থান হলো সচিবালয়। সেখানে একজন জ্যেষ্ঠ নারী সাংবাদিককে যেভাবে হেনস্তা করা হয়েছে, তা নজিরবিহীন ও ন্যক্কারজনক। প্রশাসনের গুটিকয়েক দুর্নীতিবাজের মুখোশ উন্মোচন করে রোজিনা ইসলাম যে হেনস্তার শিকার হয়েছেন, তাতে তাঁর তৈরি করা অনুসন্ধানী প্রতিবেদনগুলো যে সঠিক ছিল, সেটিই প্রমাণিত হয়েছে। তাঁরা বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় দুর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে। সেই দুর্নীতির খবর প্রকাশ করে সাংবাদিক রোজিনা এ দেশের জনগণের উপকার করেছেন। সচিবালয়ের মতো একটি জায়গায় একজন সাংবাদিকের সঙ্গে এমন ব্যবহারের কারণে এ দেশের মানুষ উদ্বিগ্ন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেই চিত্রই দেখা যাচ্ছে। রোজিনার মুক্তির দাবি শুধু সাংবাদিকদের দাবি নয়, গণমানুষের দাবি হয়ে দাঁড়িয়েছে। গণমানুষের দাবি কখনো বৃথা যায় না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *