বগুড়ায় শাহীন হত্যার ৫ বছর পর ক্লু উদঘাটন

প্রধান খবর বগুড়ার সংবাদ

পারভীন লুনা, বগুড়া:

বগুড়ার কাহালুতে শাহীন হত্যার পাঁচ বছর পর ক্লু উদঘাটন এবং জড়িত ৪ আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। শনিবার (০৫ জুন) পিবিআই বগুড়ার পুলিশ সুপার আকরামুল হোসেন প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানিয়েছেন।

গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছেন- বগুড়ার কাহালু উপজেলার কালাই নাটাইপাড়া গ্রামের আবুল কালাম আজাদ ওরফে তারা মিয়া, কালাই মাঝপাড়া গ্রামের সোহরাব হোসেন (৫০), আনিছুর রহমান পাপন (৩৫) ও কালাই খামারপাড়া গ্রামের রিপন সরদার (৪০)।

কাহালু উপজেলার কালাই নাটাইপাড়া গ্রামের আকতার ওরফে বুলু মিয়াকে মামলায় ফাঁসিয়ে তার ৯ বিঘা জমির ভোগ দখল করতে শাহীন নামের ওই যুবককে হত্যা করা হয় বুলু মিয়ার ভাগিনা রিপন সরদারের পরিকল্পনায়।

পিবিআই এর পুলিশ সুপার আকরামুল হোসেন বলেন, ২০১৭ সালের ১১ জুন সকাল সাড়ে ৭টায় কালাই নাটাইপাড়া গ্রামের রিপনের বড় মামা আকতার ওরফে বুলুর বাড়ির আঙিনায় টিউবওয়েলের পাশে শাহীনের (৪০) গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে কাহালু থানা পুলিশ। নিহত শাহীন শিবগঞ্জ উপজেলা খেউনী বিন্যাচাপড় গ্রামের লেদু মন্ডলের ছেলে। এরপর শাহীনের স্ত্রী নুর বানু বাদী হয়ে কাহালু থানায় অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

কাহালু থানা পুলিশ আড়াই বছরেও হত্যার রহস্য উদঘাটন এবং প্রকৃত জড়িতদের সনাক্ত করতে না পারায় চূড়ান্ত রিপোর্ট দাখিল করলে আদালত মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন। এরপর থেকেই ক্লুলেস এই মামলাটি তদন্ত শুরু করে পিবিআই। দীর্ঘ তদন্তের পর জড়িত সন্দেহভাজন আসামি রিপন সরদারকে গত ২ জুন কাহালুর কুনিপাড়া বাজার থেকে গ্রেফতার করা হয়। এরপর তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে অপর তিন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃত আসামিদের মধ্যে রিপন সরদার আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে বলেছে বড় মামা বুলুর ৯ বিঘা সম্পত্তি ভোগ দখলের জন্য বুলুকে ফাঁসাতে এই হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করা হয়।

রিপন আরও জানায়, তাদের ধারণা ছিল মরদেহ উদ্ধারের পর পুলিশ বুলু মিয়াকে গ্রেফতার করবে। সেই সুযোগে তারা বুলু মিয়ার সম্পত্তি ভোগ দখল করবে। কিন্তু হত্যাকাণ্ডের পারিপার্শ্বিকতা এবং প্যারালাইসিসে বিছানায় পড়ে থাকা বুলু মিয়াকে পুলিশ গ্রেফতার না করায় তাদের জমি দখলের পরিকল্পনা ভেস্তে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *