প্রতিবন্ধী ছেলের জন্য একটি হুইল চেয়ার চেয়ে সৎ মায়ের আকুতি

বগুড়ার সংবাদ

শেরপুর(বগুড়া)সংবাদদাতা:

সৎ মানে ভালো। আর মা তো মা-ই। কিন্তু বর্তমান সমাজে সৎ মাকে ভালো চোখে দেখা হয় না। অথচ এই সৎ মা-ই ১০ বছর যাবত সতীনের প্রতিবন্ধী ছেলে সাঈম হোসেন (১৩) কে লালন পালন করছে। সেই ছেলেকে লালন পালন করতে গিয়ে নিজের ভবিষ্যতকেও জলাঞ্জলি দিয়েছে। অভাবের সংসারে দিন এনে দিন খাওয়া স্বামীর আয়ের উপর নির্ভর করেই চলে তাদের সংসার। এই অভাবের সংসারে প্রতিবন্ধী ছেলেকে লালন পালন করা কষ্টকর হয়ে উঠেছে তাদের। তাই মায়ের আকুতি প্রতিবন্ধী ছেলের জন্য একটি হুইল চেয়ারের। যদি একটি হুইল চেয়ার পেতো তাহলে প্রতিবন্ধী ছেলেকে লালন পালন করতে একটু সুবিধা হতো।

জানা যায়, বগুড়ার শেরপুর উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের চক কল্যানী গ্রামের শাহাদত হোসেনের ঘরে জন্ম নেয় প্রতিবন্ধী সাঈম হোসেন। জন্ম নেয়ার তিন বছর পরেই তার মা শেফালী আরেকটি সন্তান জন্ম দেওয়াার সময় মারা যায়। প্রতিবন্ধী ছেলেকে লালন পালন করার জন্য শাহাদাত হোসেন আবারো বিয়ে করেন। সেই সৎ মা শিল্পী খাতুন নিজের ভবিষ্যতের কথা চিন্তা না করে দীর্ঘ ১০ বছর যাবত তার সতীনের ছেলে প্রতিবন্ধী সাঈম হোসেনকে লালন-পালন করছেন। তাকে লালন পালন করতে গিয়ে তার বাবার বাড়িতে যাওয়াও ভুলে গেছেন তিনি। বয়সের সাথে সাথে সাঈমের ওজন বেড়ে যাওয়ায় তাকে কোলে নিয়ে এদিক সেদিক যাওয়া দুষ্কর হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই হত দরিদ্র পরিবারটি প্রশাসন ও বিত্তবানদের কাছে একটি হুইল চেয়ারের জন্য আকুতি জানিয়েছেন।

এ ব্যাপারে প্রতিবন্ধী সাঈমের সৎ মা শিল্পী খাতুন জানান, সাঈমের শরীর অচল হওয়ায় তাকে বেশিরভাগ সময় বিছানা অথবা দোলনাতে শুইয়ে রাখা হয়। আর এ কারণে তার শরীরের পাশাপাশি মনের বিকাশও বৃদ্ধি পাচ্ছেনা। তাই কোন সহৃয় ব্যাক্তি বা প্রশাসনের কেউ যদি একটি হুইল চেয়ার দান করত তাহলে আমার প্রতিবন্ধী ছেলেকে একটু বাহিরে নিয়ে যেতে পারতাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *